মিলিফোলিয়াম

উজ্জ্বল টাটাকা লাল ব্যথাহীন রক্ত স্রাব, বিশেষ করে আঘাতের ফলে রক্তস্রাব হয় কিন্তু জ্বর উৎকণ্ঠা ও বমিভাব নেই।
উচ্চস্থান হতে পতনের ফলে, অনেক উঁচু স্থানে উঠার ফলে এবং পরিস্রমের ফলে অসুস্থ হলে।
বুকে চাপ অনুভূতি সহ হ্রদকম্পন।
অর্শ বা ঋতুস্রাব চাপা পড়ার পরে কাশি।

(য়্যারো নামক গাছড়া)

(যখন ফুল আসে তখন সমস্ত গাছটি নিয়ে টিংচার প্রস্তুত হয়)

উপযোগিতা – ভারী বস্তু তুলে, বেশী পরিশ্রম করে বা পড়ে গিয়ে আঘাত লেগে রোগ হলে এ ওষুধ উপযোগী ।

মাথাঘোরা — আস্তে আস্তে নড়াচড়ায় হয় অথচ বেশী পরিশ্রমে হয় না।

রক্তস্রাব – আক্রান্ত স্থানে কোন ব্যথা থাকে না, জ্বর হয় না—রক্ত তরল ও উজ্জ্বল লাল রঙের (একোন, ইপি, স্যাবাইনা); ফুসফুস হতে, বায়ুনলী, স্বরযন্ত্র, মুখ, নাক, পাকস্থলী, মূত্রথলী, রেকটাম, জরায়ু হতে ঐরূপ রক্তস্রাব হলে উপযোগী। আঘাত লেগে (আর্নিকা) বা ঘা হয়ে ঐরূপ রক্তস্রাব হলে (হেমামে) ব্যবহার্য। ক্ষতস্থান হতে বিশেষ করে পড়ে গিয়ে আঘাত লেগে (আর্নি, হেমামে) প্রচুর ঐ রকম রক্তপাত হলে ব্যবহার্য।

আঘাত লেগে, ক্ষয়রোগের প্রথম অবস্থায়, অর্শরোগে, রক্তবাহী শিরা ফেটে গিয়ে মুখ হতে ঐরূপ রক্ত পড়লে উপযোগী।

নাক, ফুসফুস, জরায়ু হতে বেদনাহীন রক্তস্রাবে উপযোগী। প্রসবের পর, গর্ভপাতের, প্রচণ্ড পরিশ্রমের পর, গর্ভস্রাবের পর ঐরূপ বেদনাশূন্য রক্তস্রাব হলে উপযোগী। প্রসবের পর রক্তস্রাব এ ওষুধে বন্ধ হয়।

ঋতুস্রাব – নির্দিষ্ট সময়ের আগে হয়, পরিমাণে বেশী ও অনেকদিন ধরে হতে থাকে। ঋতু বন্ধ হয়ে পেটে শূল বেদনা হয়।

পেশীর দুর্বলতা হতে শিশুদের শ্বেতপ্রদর দেখা দেয় (ক্যালকে-কা)।

কাশি – কাশিতে উজ্জ্বল রক্ত ওঠে। ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে বা অর্শরোগের স্রাব বন্ধ হয়ে কাশি ঐ সাথে বুকে চাপরোধ ও বুক ধড়ফড়ানি, উচুস্থান হতে পড়ে গিয়ে আঘাত লেগে আর্নিকা; প্রচন্ড পরিশ্রম করে প্রতিদিন বিকেল ৪টায় কাশি হয়ে রক্ত বার হলে (লাইকো) উপযোগী।

সম্বন্ধ – নাক দিয়ে বা মুখ দিয়ে উজ্জ্বল রক্ত বার হওয়া লক্ষণে ইরেকথাইটিস এর সাথে তুলনীয়। রক্তস্রাবে একোন ও আর্নিকার পরে ভাল খাটে।

শক্তি – নিম্নশক্তি।

নানা প্রকারের রক্ত স্রাবের ক্ষেত্রে, এটি একটি মহামূল্যবান ঔষধ বিশেষ ; রক্ত উজ্জ্বল লালবর্ণের। অবরুদ্ধ জাতীয় হার্ণিয়া, গুটি বসন্ত, তৎসহ পাকস্থলীর উপরের অংশে তীব্র বেদনা। পাথুরির অস্ত্রোপচারের পরে ঔষধটি ব্যবহার হয়। উঁচু স্থান থেকে পড়ে যাবার কুফল ;অতিরিক্ত ভারী বস্তু তোলার কুফল। অবিরাম উচ্চ গাত্রতাপ কাশির সঙ্গে রক্ত উঠে।

মাথা – ধীরে-ধীরে ভ্রমন করার সময় মাথা ঘোরা। সে যেন কিছু ভুলে যাচ্ছে, এই জাতীয় অনুভূতি। মাথা মনে হয় রক্তে পূর্ণ। ঋতুস্রাব অবরুদ্ধ হয়ে তড়কা ও মৃগী। জোরে খোঁচা মারার মত বেদনা।

নাক – নাক থেকে রক্তস্রাব (ইরেক যাইটিস)। চোখ দুটি থেকে নাকের গোড়া পর্যন্ত খোঁচামারার মত বেদনা।

মল – অন্ত্র থেকে রক্তস্রাব। রক্তস্রাব যুক্ত অর্শ। প্রস্রাব রক্তযুক্ত (সেনেসিয়ো অরিয়াম)।

স্ত্রীরোগ — ঋতুস্রাব নির্দিষ্টসময়ের আগে, প্রচুর দীর্ঘস্থায়ী। জরায়ুথেকে রক্তস্রাব ; উজ্জ্বল, লালবর্ণের তরলরক্ত ;নাভাবস্থায় বেদনাপূর্ণশিরাস্ফীতি।

শ্বাস-প্রশ্রাব যন্ত্রসমূহ – যক্ষ্মারোগের শুরুতেই ফুসফুস থেকে রক্তস্রাব। কাশি, তৎসহ রক্তযুক্ত শ্লেষ্মা, অবরুদ্ধ ধাতুস্রাব অথবা অর্শ। তীব্র হৃদকম্প ।

সম্বন্ধ-তুলনীয় – ফিকাস ভেনোসা (পাকুর) – (ফুসফুস ও অন্ত্র থেকে রক্তস্রাব।

একালাইফা ও হেলিক্স টোস্টা (শামুক) – ফুসফুস থেকে রক্তস্রাব, বুকের রোগে, ক্ষয়রোগে );এছাড়াও সিকেলকর; ইপিকাক ইরো=থাইসিস; ইরিজেনিয়াম ; হ্যামামেলিস।

শক্তি – অরিষ্ট, থেকে ৩য় শক্তি।

স্থায়ী শিরাস্ফীতির জন্য ইহা একটি অতি উপকারী ঔষধ, বিশেষতঃ যদি কৈশিকাগুলি স্পঞ্জের ন্যায় এবং বর্ধিত হয়। শিরাগুলি রক্তপূর্ণ হইলে সহজেই ছিড়িয়া যায়। ক্ষত হইতে হইজেই প্রচুর রক্তপাত হয়। ইহা সন্ন্যাস রোগের পক্ষে উপযোগী। চর্মের উপর ও চক্ষে কালশিরা। ইহা স্থানিক রক্তসঞ্চয়ের পক্ষে উপযোগী। যে-কোন অঙ্গ হইতে, ক্ষত হইতে, আঘাত হইতে রক্তস্রাব । রক্তবহা নাড়ীগুলির ক্রিয়ারাহিত্য। ফুসফুস, পাকস্থলী, সরলান্ত্র ও নাসিকা হইতে এবং দাঁত তোলার পর রক্তস্রাব। রক্ত সচরাচর উজ্জ্বল লালবর্ণ থাকে। গর্ভাবস্থায় অঙ্গাদির উপর স্থায়ীভাবে বিস্তৃত শিরা, যন্ত্রণাদায়ক হইলে উপযোগী। দুষ্ট প্রকৃতির ক্ষততাৎপত্তি হইতে রক্তস্রাব। অস্ত্রোপচারের পর এবং ক্ষতস্থানটি ভালভাবে বন্ধ করা হইলেও ক্ষতের প্রান্তভাগের চর্ম হইতে উজ্জ্বল লাল রক্তক্ষরণ। সাধারণভাবে রক্তস্রাবকর অবস্থার উদ্ভব হইলে ব্যবহার্য । এইরূপ অবস্থায় সহিত হৃদপিন্ডের উপদ্রব সংযুক্ত থাকে এবং উহা থাকাই আশা করা উচিত। যদি রক্তস্রাবের ইতিহাস থাকে, তাহা হইলে অস্ত্রোপচারের পূর্বে এই ঔষধটি দেওয়া উচিত (ল্যাকে’)। রক্তস্রাবের পর ভীষণ রক্তসঞ্চয়। রক্তাধারগুলির টিসুসমূহের মেরামত হওয়ার কোনরূপ প্রবণতা থাকে না। মস্তিষ্কে অতি রক্তসঞ্চয় এবং মুখমন্ডল লালবর্ণ। মাথায় পূর্ণতাবোেধ ও উত্তাপ, কিন্তু জ্বর থাকে না। বুক হইতে মাথার দিকে রক্তের ঢেউয়ের ন্যায় উচ্ছাস। তীব্র শিরঃপীড়া। মস্তকের পশ্চাদ্দিকে অপ্রবল যন্ত্রণা। মাথার যন্ত্রণা অবনত হইলে বাড়ে।

আরক্ত চক্ষু। চক্ষে ও নাকের গোড়ায় তীব্র যন্ত্রণা। চক্ষু লাল লাল ও রক্তসঞ্চয়বিশিষ্ট। কুয়াসাচ্ছন্ন দৃষ্টি।

বাম কর্ণে শব্দ—তাহাকে চমকিত করে; তারপর হাসিতে থাকার কালে কর্ণে শব্দ। যেন কর্ণ হইতে শীতল বায়ু নির্গত হইতেছে, এরূপ অনুভূতি। যেন কর্ণ দুইটি বুজিয়া গিয়াছে, এরূপ অনুভূতি। কর্ণে তীব্র যন্ত্রণা। কর্ণশূল।

মস্তক ও বক্ষে রক্তসঞ্চয়ের সহিত নাসিকার রক্তপাত।

মুখমন্ডল উত্তপ্ত, কিন্তু জ্বর থাকে না। স্ফীত শিরাচ্ছন্ন মুখমন্ডল। মুখমন্ডলে উত্তাপের ঝলক। ( উষ্ণ জিনিষে দাঁতে যন্ত্রণা। রক্তস্রাবপ্রবণ রোগীকে দাঁত তোলার পূর্বে একমাত্রা মিলি বা ল্যাকে’ দেওয়া উচিত। গলা লাল ও ক্ষতবৎ বেদনাযুক্ত, গলায় ক্ষত, উহা হইতে সহজেই রক্তপাত হয়।

প্রাতঃকালে শূন্যতাবোধ ও ক্ষুধার অনুভূতি। পাকস্থলীতে জ্বালা, সম্মুখদিকে অবনত হইলে বৃদ্ধি। পাকস্থলী ও উদরে জ্বালা, উহা বুক পৰ্য্যন্ত বিস্তৃত হয়। রক্তবমন।

উদরবায়ু স্ফীত। অন্ত্রাদি ও সরলান্ত্র হইতে রক্তস্রাব। টাইফয়েড জ্বরে রক্তস্রাব। ভারি জিনিষ তোলা অথবা আঘাতের ফলে আভ্যন্তরিক রক্তস্রাব। দীর্ঘকাল স্থায়ী রক্তস্রাব। রক্তস্রাবী অর্শ। মলদ্বারের উপমাংস হইতে রক্তস্রাব।

মূত্র রক্তময়, মূত্র থিতাইবার পর মূত্রের মধ্যে রক্তের চাপ। মূত্রপিন্ডদ্বয়ে যন্ত্রণা, তারপর রক্তাক্ত মূত্র, অনেকদিন যাবৎ চলিতে থাকে। মূত্রধারণে অক্ষমতা।

সঙ্গমকালে রেতঃপাত হয় না। মূত্রস্থলী ও মূত্রনলী হইতে রক্তস্রাব। রক্তপাতশীল ক্ষত।

প্রচুর ঋতুস্রাব, দীর্ঘকাল স্থায়ী, তৎসহ জরায়ু ও উদরে খালধরা। সামান্য পরিশ্রমের পর, বা গর্ভস্রাব হইতে বা প্রসবকালে জরায়ু হইতে রক্তস্রাব ক্রমাগত চলিতে থাকে, উজ্জ্বল লাল রক্ত। গর্ভবতী স্ত্রীলোকদিগের পায়ের স্ফীত শিরায় ক্ষত জন্মে ও রক্তপাত হয়। কষ্টকর প্রসবের পর দীর্ঘকাল স্থায়ী, দুঃসাধ্য রক্তপাত। রক্তস্রাবের প্রবণতাযুক্ত স্ত্রীলোকদিগকে আঁতুড়ে যাওয়ার পূর্বে একমাত্রা মিলিফোলিয়াম দেওয়া উচিত। প্রসবান্তিক স্রাবের নাশ। স্তনে দুগ্ধ জন্মে না। জরায়ু হইতে রক্তস্রাবের পর জরায়ুর প্রদাহ।

বুকে চাপবোধ, হৃদস্পন্দন, বুক হইতে মস্তকে রক্তের উচ্ছাস। ফুসফুস হইতে রক্তস্রাব। ফুসফুস হইতে রক্তস্রাবের পর ফুসফুসে রক্তসঞ্চয়। ঋতুলোপের ফলে ফুসফুস হইতে রক্তস্রাব। প্রত্যহ অপরাহ্ন ৪টার সময় মুখ দিয়া রক্ত উঠা। যক্ষ্মারোগে ফুসফুস হইতে রক্তস্রাব। পরিশ্রমের পর ফুসফুস হইতে রক্তস্রাব। গাড়ী হইতে নিক্ষিপ্ত হওয়ার পর কোন ব্যক্তির বহু সপ্তাহ ধরিয়া কাশির সহিত রক্ত উঠিতেছিল, খুব উচ্চশক্তিতে এই ঔষধ দেওয়ায় সে আরোগ্য। হইয়াছিল। হৃদপিন্ডস্থানে অতিরক্তসঞ্চয়।

(Millefolium – mille, a thousand + folium, a leaf)

অপর নাম – ইয়ারো (Yarow)

নোজ ব্লিড (Nose Bleed)

এর সরসপাতা থেকে মূল অরিষ্ট তৈরী করা হয়।

ইরিজিন, ট্রিলিয়াম ও মিলিফোলিয়ামের এই তিনটি ঔষধের মধ্যে একমাত্র মিলিফোলিয়ামের পরীক্ষা লক্ষণে রক্তস্রাব উৎপন্ন হয়েছিল বলে মনে হয় হ্যানিম্যান এর সম্বন্ধে বলেন যে ‘ইহা নাসিকার রক্তপাত ঘটায় ও বুক্ত প্ৰষাৰ উৎপাদন করে। চিকিৎসা ক্ষেত্রেও ইহা প্রমানিত হয়েছে।”

ভিন্ন ভিন্ন যন্ত্র থেকে রক্তপাত হওয়া মিলিফোলিয়ামের লক্ষণ,এক্ষেত্রে রক্ত একোনাইটের মত উজ্জ্বল লাল বর্ণের হয় কিন্তু এতে একোনাইটের মত উৎকণ্ঠা থাকে না, তাছাড়া যেসকল রোগীতে আমি ইহা ব্যবহার করেছি তাতে তাদের খুব ভয় ও ছিল না। কখনও কখনও প্রস্রাবের যুক্ত পাত্রের তলায় একটি রক্তের ডেলা বা কেকের মত জমা হয়। তরুন বয়সে আমি (ডা. ন্যাশ) বার বার নাসিকের রক্তপাতে ভুগেছিলাম। ডা.  টি. এল ব্রাউন আমার জন্য ঔষধ ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু উহা বিফল হয়ে ছিল। আমি বক্তক্ষয় বশতঃ অত্যন্ত দুর্বল হয়ে পড়েছিলাম। পরিশেষে আমার বৃদ্ধ ঠাকুমা আমাকে মিলিফোলিয়ামের শিকড় চিবতে বলেন এবং গাছটকে আমাদের বাগানে দেখিয়ে দেন। আমি ঠাকুমার কথানুসারে গাছটি চিবই এবং দ্রুত আরোগ্য লাভ করি।

 

রোগী বিবরণী :

আমি অবকাশকালে এডিবনড্যাকস-এর মাউন্টেনের লেকে বেড়াতে গিয়েছিলাম, সেখানে আমি একজনকে যক্ষ্মার শেষ অবস্থায় দেখি। তার সঙ্গে তার নিউইয়কের ডাক্তারের দেওয়া ঔষধ ছিল। তার প্রবল কাশির সহিত প্রত্যহ অনেক খানি করে রক্ত উঠছিল। নিউইয়র্কের কোন চিকিৎসক তাকে সিকেলি ব্যবস্থা করেছিলেন, তাতে তার কোন উপকার হয়নি। অবশেষে সে আমাকে বলেছিল, ডাক্তার, আপনি কি আমার এই রক্তপড়া বন্ধ করার জন্য কিছু করতে পারেন। আমি এ রোগীকে হাতে নিতে চাইনি। কিন্তু আমি থেমে গিয়ে আমার পায়ের কাছ থেকে মিলিফোলিয়ামের শিকড় তুলে তার হাতে দিয়ে তাকে চিবতে বলি। সে আশ্চর্য হয়ে ছিল। ওর স্বাদ ভাল লাগায় সে ক্ৰমাগতই ঐ শিকড় চিবচ্ছিল। এতে তার রক্ত উঠা বন্ধ হয় ও কাশিও শাস্তি হয়। এক্ষেত্রে তার কাশি এত কমে যে সে একঝুড়ি মিলিফোলিয়ামের শিকড় তুলে বাড়ী নিয়ে গিয়েছিল। এতেই তার বক্ত উঠা বন্ধ হয়। শীতকালে সে ক্লোসিভ গিয়েছিল এবং এক বছর পরে তার মৃত্যু হয়।

* পড়ে যাওয়া বা অন্য কোন উপঘাতের ফলে রক্ত স্রাবে মিলিফোলিয়াম উপযোগী। এইস্থলে আর্নিকা বিফল হলে মিলিফোলিয়াম দেওয়া যেতে পারে।

About The Author

M.D (AMCC, Kolkata, India) M.M (B.M.E.B) D.H.M.S (B.H.B)

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!